আজ ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কিশোরগঞ্জে ছাত্রকে বলাৎকারে মাদরাসা শিক্ষক গ্রেপ্তার 

 

কিশোরগঞ্জে ১০ বছর বয়সী হেফজ বিভাগের এক ছাত্রকে বলাৎকারের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় হাফেজ বেলাল হোসেন বিল্লাল (২৫) নামে এক মাদরাসা শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-১৪ এর সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্প।
বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত ২টার দিকে ময়মনসিংহ জেলার গৌরিপুর উপজেলার বিশ্বনাথপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার হওয়া হাফেজ বেলাল হোসেন বিল্লাল কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের নগুয়া শ্যামলী রোডে প্রতিষ্ঠিত জামিয়াতুস সুন্নাহ কিশোরগঞ্জ নামে একটি মাদরাসার শিক্ষক এবং ময়মনসিংহ জেলার ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার পাড়া পাঁচাশি গ্রামের মো. মজিবুর রহমানের ছেলে।

র‌্যাব-১৪ এর সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লে. কমান্ডার এম শোভন খান বিএন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগে গত ৩০ আগস্ট কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় ছাত্রের পিতা বাদী হয়ে জামিয়াতুস সুন্নাহ মাদরাসার শিক্ষক হাফেজ বেলাল হোসেন বিল্লাল এবং মাদরাসার অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা মুফতী হোসাইন মোহাম্মদ নাঈম (৩৩) কে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধনী ২০০৩) এর ৯(১)/৩০ ধারায় মামলা (নং-৫০, তারিখ: ৩০/০৮/২০২১) দায়ের করেন।

মামলায় মাদরাসার শিক্ষক হাফেজ বেলাল হোসেন বিল্লালের বিরুদ্ধে বলাৎকারের অভিযোগ এবং অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা মুফতী হোসাইন মোহাম্মদ নাঈমের বিরুদ্ধে অভিযুক্ত শিক্ষক বিল্লালকে পালিয়ে যেতে সহযোগিতার অভিযোগ করা হয়েছে।
মামলার পর র‌্যাব ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং আসামি গ্রেপ্তারের জন্য জোর প্রচেষ্টা চালায়।

এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত ২টার দিকে ময়মনসিংহ জেলার গৌরিপুর উপজেলার বিশ্বনাথপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে মূল অভিযুক্ত হাফেজ বেলাল হোসেন বিল্লালকে র‌্যাব গ্রেপ্তার করে।
র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। আসামিকে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক পিপিএম জানান, র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) বিকালে ছাত্র বলাৎকারে অভিযুক্ত মাদরাসা শিক্ষক হাফেজ বেলাল হোসেন বিল্লালকে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

এ ঘটনায় পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এছাড়া মামলার অপর আসামিকে গ্রেপ্তারে পুলিশ কাজ করছে।

 

Comments are closed.

     এই ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ