আজ ১৪ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কিশোরগঞ্জের ভয়ংকর প্রতারক শিশির আহমেদ ধরা ছোঁয়ার বাইরে

দেশের কয়েক হাজার বেকারদের চাকুরী দেয়ার নামে রমরমা বাণিজ্য

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: ‘ড্রিম হার্ট বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পনীতে আকর্ষনীয় বেতনে চাকুরী দেওয়ার লোভনীয় অপারে সর্বস্বান্ত
হয়েছি। ওই কোম্পনীর চেয়ারম্যান মো: তোফাজ্জল বাশার শিশির ওরফে শিশির আহম্মেদ ত্রিশ হাজার টাকার বিণিময়ে চাকুরীর নামে আমাদের সাথে প্রতারণা করেছে’ এভাবেই বলছিলেন কিশোরগঞ্জ জেলা সদরের মহিনন্দের বাসিন্দা মো: রুবেল মিয়া। শুধু রুবেল মিয়াই নন বাংলাদেশের অনেক প্রত্যন্ত অঞ্চলের সহজ সরল এরকম কয়েক হাজার বেকার ছেলেদেরকে চাকুরী দেওয়ার নামে হাতিয়ে নিয়েছে লক্ষ লক্ষ টাকা। এরকম প্রতারণার শিকার নোয়াখালী জেলার সুধারামপুর উপজেলার পুর্ব এজবাড়িয়ার মো: ইবরাহীম বাদী হয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় ড্রিম হার্ট বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পনীর এমডি মো: তোফাজ্জল বাশার শিশির ওরফে শিশির আহম্মেদকে আসামী করে প্রায় ১ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে মামলা (নং৩৬ তাং২৭.৮.১৫ ইং,ধারা৪২০.৪০৬.১০৯) দায়ের করেছেন। এছাড়াও রয়েছে তার নামে দক্ষিণ খান থানায় ( মামলা নং-১৭ (০৬)১৬সহ আরও কয়েকটি মামলা।
জানা গেছে, কিশোরগঞ্জ জেলার হাওরবেষ্টিত ইটনা উপজেলার শিমলা বড়বাড়ির মো: আবুল বাশারের পুত্র মো: তোফাজ্জল বাশার শিশির ওরফে শিশির আহম্মেদ ২০১৪ সালে গাজীপুরে প্রথমে লাইফওয়ে কোম্পানীতে এ ব্যবসা শুরু করেন। পরবর্তীতে ঢাকাস্থ উত্তরা পশ্চিম থানার সোনারগাঁও জনপথ রোডের ১৩ সং সেক্টরের ১৫ হাউজের দোয়েল সেন্টারের ৫ম তলা ভাড়া নিয়ে ড্রিম হার্ট বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিটেড নামে
নিজেই একটি কোম্পানী চালু করেন। এ কোম্পানীর অধীনে হোটেল এশিয়ার উপড়ে ৪ নাম্বার ফ্লোরে,শ্রীপুর রেল গেইট এলাকা,গাজীপুর চৌরাস্তার সংলগ্ন দক্ষিণ পশ্চিম কোনে,উত্তরা বেরি বাঁধের আশুলিয়া রোডে, উত্তরা হাউজ বিল্ডিংয়ের সাথে বাংলাদেশ মেডিকেল এর একটি বিল্ডিংয়ে, ১২ নাম্বারের মোড়ে কেএফসি বিল্ডিংয়ের সাথের শাখা, উত্তরা ১২ মেক্টরের ময়লার মোড়ে, সেক্টর ৪ এর রাজলক্ষীর একটি ব্যাংকের সাথে, আজমপুরে,খিলক্ষেত এলাকায় গোপনে শাখা প্রশাখা খোলে প্রতিটি শাখায় কয়েক শতাধিক বেকার ছেলে মেয়েদেরকে চাকুরী দেওয়ার নামে নিন্মে জনপ্রতি ৩০ হাজার টাকা করে নিলেও তাদের কপালে কোনো চাকুরী জোটেনি। প্রতারণার শিকার অনেকেই জানিয়েছেন দেশের বিভিন্ন জেলা হতে কয়েক হাজার ব্যক্তিকে চাকুরী দেওয়ার নামে হাতিয়ে নিয়েছেন মোটা অংকের টাকা। দেশের বিভিন্ন থানায় ওই প্রতারকের নামে মামলাও হয়েছে। এসব মামলা হলেও ভয়ংকর প্রতারক শিশির ধরা ছোয়ার বাইরে। প্রতারিত কয়েকজন জানিয়েছেন, ড্রিম হার্ট বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিটেড
কোম্পারী বাজেয়াপ্ত হলেও স্মোথ ও এনডিবি নামে চালু রাখেন প্রতারণার রমরমা এ ব্যবসা। বর্তমানে হলিস্টিক হোম বিল্ডার্স কোম্পানীর ম্যানেজিং ডিরেক্টর হিসেবে কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন ওই প্রতারক। প্রতারণার শিকার কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরের বাসিন্দা কলেজ ছাত্র মো মেহেদী
হাসান জানান, ওই কোম্পানীর এমডি শিশির আমার থেকে ৩০ হাজার টাকা নিলেও উল্টো উত্তরা পশ্চিম থানার দায়েরকৃত মামলায় আসামী হয়ে জেল কেটেছি। শুধু তাই না এ মামলায় আসামী হয়েছেন বিভিন্ন এলাকার নীরিহ সাধারণ
পরিবারের লোকজন। যারা ঢাকায় জীবীকার সন্ধানে চাকুরীর জন্য এসে প্রতারকদের কবলে পড়ে তারা প্রতারিত হয়েছেন। ময়মনসিংহ জেলার পাগলা থানার বারইহাটি এলাকার চাকুরীপ্রার্থী মো: হারুন বলেন, আমার কাছ থেকে ড্রিম হার্ট বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানীর এমডি শিশির আহমেদ ৩০ হাজার টাকা নিলেও চাকুরী দেয়নি। বরং আমি উল্টো উত্তরা থানায় দায়েরকৃত মামলায় আসামী হয়ে জেল কেটেছি। অতচ এ মামলার ৭
বছর অতিবাহিত হলেও প্রভাবশালী প্রধান আসামী শিশির ধরাছোয়ার বাইরে। আমি বা আমার মত সাধারণ পরিবারের কেটে খাওয়া বেকার পোলাপানদের নামে এ মামলা থেকে অব্যাহতি চাই। সেই সাথে প্রতারক শিশিরকে আইনের আওতায়
আনার দাবী জানাই। কিশোরগঞ্জ জেলা সদরের মহিনন্দের বাসিন্দা চাকুরীপ্রার্থী মো: রুবেল মিয়া বলেন, ড্রিম হার্ট বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পনীতে আকর্ষনীয় বেতনে চাকুরী দেওয়ার লোভনীয় অপারে সর্বস্বান্ত হয়েছি। ওই কোম্পানীর চেয়ারম্যান মো: তোফাজ্জল বাশার শিশির ওরফে শিশির আহম্মেদ ত্রিশ হাজার টাকার বিণিময়ে চাকুরী দেয়ার নামে আমার সাথে প্রতারণা করেছে। একদিকে
প্রতারিত হয়ে জেল এবং আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও উত্তরা থানার দায়েরকৃত মামলার আসামীও হয়েছি। এ মামলা থেকে অব্যাহতি চাই।
করিমগঞ্জের বাসিন্দা আনোয়ার পাশা বলেন, ওই কোম্পানীর এমডির বাড়ি যেহেতু কিশোরগঞ্জ তাই সরল বিশ^াসে কোম্পানীতে যোগদান করেছিলাম। আমার অধীনেই শতাধিক ছেলেও যোগদান করেছিলো। কিন্ত কোম্পানীতে কিছুদিন কাজ করার পরে জানতে পারি সেটি একটি প্রতারণামুলক এমএলএম কোম্পানী। পরে আমি সেখান থেকে চলে আসি।

কাপাশিয়ার চাকুরীপ্রার্থী আজিজুল ইসলাম জানান, শিশিরের নামে ২৬ লাখ টাকার ক্ষতিপুরণ চেয়ে খিলক্ষেত থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছিলাম। চাকুরী পেলাম না আরও প্রতারিত হয়েছি। আরও অনেকেই অভিযোগ দিয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এমডির ঘনিষ্ট একজন বলেন, শিশির আহমেদ একজন বড় ভয়ংকর প্রতারক। সে হাজার হাজার বেকার ছেলেদেরকে কর্মসংস্থানের নামে তাদের জীবন নষ্ট করেছে। সে ভিআইপিদের সাথে কৌশলে ভীড়ে ছবি তোলে প্রভাব বিস্তার করেও প্রতারণার নেটওয়ার্ক শক্তিশালী করে। ফলে সহজেই কেউ তার প্রতারণার ফাদ বুঝকে পারেনি। যারাই এ কোম্পানীতে চাকুরী করতে এসেছে তারাই বুঝেছে সে কত বড় ভয়ংকর প্রতারক। এ বিষয়ে উত্তরা পশ্চিম থানার মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো:শাহিন আল রশিদ সরকার এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ড্রিম হার্ট বাংলাদেশ প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানীর এমডি মো: তোফাজ্জল বাশার শিশির ওরফে শিশির আহম্মেদকে প্রধান আসামী করে উত্তরা থানার দায়েরকুত মামলায় ২৩ জনকে আসামী করা হয়। এরমধ্যে ৬জনকে রেখে বাকীদেরকে মামলা থেকে অব্যাহতি চেয়ে আদালতে প্রতিবেদন দিয়েছিলো সিআইডির পুলিশ পরিদর্শক জাফর ইকবাল। সে মামলার বাদী আদালতে না রাজি দেয়ায় বর্তমানে আমি মামলাটি অধিকতর তদন্ত করছি। খুব শিঘ্রি প্রতিবেদন দায়ের করা হবে। আমিনুল হক সাদী

Comments are closed.

     এই ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ