আজ ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শোলাকিয়ায় স্মরণকালের বৃহত্তম ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত

 

কিশোর প্রতিনিধি: ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে সতর্কতা ও নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হলো ঈদুল ফিতরের জামাত। বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) সকাল ১০টায় শোলাকিয়ায় ১৯৭তম ঈদুল ফিতরের জামাতে অংশগ্রহণ করেন ৬ লাখেরও বেশি মুসল্লি।

ঈদের জামাতে অংশ নিতে সকাল থেকেই দূর-দূরান্ত থেকে মুসল্লি ঈদগাহে আসেন। সকাল ৯টার মধ্যেই ঈদগাহ লোকে লোকারণ্য হয়ে পড়ে।

দূর-দূরান্ত থেকে আসা মুসল্লিদের জন্য রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ শোলাকিয়া স্পেশাল নামে দুটি বিশেষ ট্রেনেরও ব্যবস্থা করেছে। একটি ট্রেন ময়মনসিংহ থেকে এবং অন্যটি ভৈরব থেকে ছেড়েছে।

 

এবার ঈদের নামাজে ইমামতি করেন কিশোরগঞ্জ বড় বাজার মসজিদের খতিব মাওলানা শোয়াইব বিন আব্দুর রউফ। নামাজে মুসল্লিদের ভিড়ে কানায় কানায় পূর্ণ ছিলো শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দান। খুতবা শেষে বাংলাদেশসহ মুসলিমরা মঙ্গল কামনা করে মোনাজাত করা হয়।

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাসেল শেখ বলেন, আমরা সব সময় বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা করি। এবারও পূর্বের সকল বিষয় মাথায় রেখে নিরাপত্তা ব্যবস্থা রয়েছে শোলাকিয়ায়। তাই আমরা কিছু বাড়তি আয়োজন করেছি। এর মধ্যে ইদগাহ ময়দানকে লক্ষ্য করে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। প্রতিটি মানুষ যখন ঈদগাহ ময়দানে আসবেন পুলিশের চারটি স্থাপনা পেরিয়ে আসতে হবে।

যানা গেছে, শোলাকিয়ায় নামাজ আদায়ের দুই দিন ধরেই বিভিন্ন জেলা থেকে লোক আসতে শুরু করে। অনেকে আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধবের বাসায়, আবাসিক হোটেল, শহরের মসজিদগুলোতে এবং ঈদগাহ মাঠে খোলা আকাশের নিচে আশ্রয় নিয়ে রাত যাপন করেন। বড় ঈদগাহ, বড় জামাত ও বেশি মুসল্লির সঙ্গে নামাজ আদায়ের জন্য বিভিন্ন এলাকা থেকে ছুটে আসেন লাখ লাখ মুসল্লি।

রেওয়াজ অনুযায়ী জামাত শুরুর আগে মুসল্লিদের সংকেত দিতে শর্টগানের ছয়টি ফাঁকা গুলি ছোড়া হয়। তিনটি জামাত শুরুর ১৫ মিনিট আগে, দুটি ১০ মিনিট আগে এবং শেষটি জামাত শুরুর এক মিনিট আগে ছোড়া হয়। আগত লাখ লাখ মুসল্লির নিরাপত্তার স্বার্থে এখানে টুপি ও জায়নামাজ ছাড়া কিছু সঙ্গে নিয়ে প্রবেশ করা নিষিদ্ধ করা হয়েছিলো।

 

Comments are closed.

     এই ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ