আজ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ইটনায় মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

ফারুকুজ্জামান,কিশোরগঞ্জঃ জেলার ইটনায় ব্যবসায়ী মোঃ হাসান কবির (৪৫) দুর্ঘটনায় আহত হয়ে তিনি পূর্ব শত্রুতায় প্রতিপক্ষের নামে প্রাণনাশের জন্য হামলা, জখম, চুরি, হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শনের মিথ্যা মামলা দায়ের করেছেন। অথচ দুর্ঘটনার পরপরই আহতের ছোটভাই আনিসুর রহমান ফেসবুকে তার বড়ভাই কবির ছাদ থেকে পড়ে গিয়ে আঘাত পেয়েছেন মর্মে নিজের আইডিতে স্ট্যাটাস দেন। পরে উদ্ভুদ ও বানোয়াট মামলা দিয়ে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের হয়রানি করায় এটি প্রত্যাহারের দাবিতে বাজারের ব্যবসায়ী ও এলাকার নানা শ্রেণি পেশার মানুষ ফুঁসে উঠেছেন। মঙ্গলবার সকালে বিক্ষুব্ধরা উপজেলার চৌগাংগা বাজারে রাস্তার দু’পাশে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদে অংশ নেন। ঘন্টাব্যাপী এ কর্মসূচি শেষে তারা বাজারে বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

মানববন্ধনে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং সঠিক তদন্তের মাধ্যমে রহস্য উদ্ঘাটনের দাবি জানিয়ে বক্তৃতা করেন চৌগাংগা ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আলী, চৌগাংগা বাজার বণিত সমিতির সভাপতি আব্দুল আউয়াল, সহ-সভাপতি এনামুল হক, ব্যবসায়ী সাইদুর রহমান, পল্লী চিকিৎসক আব্দুল গণি প্রমুখ। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে হাসান কবিরের দুর্ঘটনায় আহত হওয়ার ঘটনাকে আড়াল করে উদ্দেশ্যমূলকভাবে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। তারা এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার চান। এ সময় তারা অভিযোগ করে জানান, গত ৩রা জানুয়ারি রাত সাড়ে ১০টায় চৌগাংগা বাজারের ডায়াগনস্টিক ব্যবসায়ী মোঃ হাসান কবির (৪৫) তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ছাদ থেকে সিঁড়ি দিয়ে নামাকালে পড়ে গিয়ে গুরুতর আহত হয়।

এ ঘটনার পরপরই তার ছোট ভাই আনিসুর রহমান ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ছাদ থেকে পড়ে গিয়ে তার বড় ভাই হাসান আঘাত পেয়েছেন বলে জানান। কিন্তু এ ঘটনার তিনদিন পর গত ৬ জানুয়ারি হাসান কবির বাদী হয়ে এলাকার বেশ কয়েকজন গণ্যমান্য ব্যক্তিসহ মোট ৮জনকে আসামি করে প্রাণনাশের জন্য হামলা, জখম, চুরি, হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ এনে ইটনা থানায় মামলা (নং-০২) করেন। এ মামলায় সাহেদ আলী (৫৫) ও আহাদ মিয়া (৫৮) নামের দুই আসামিকে পুলিশ ইতোমধ্যে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানোর পর তারা জামিনে ছাড়া পান। এদিকে মিথ্যা মামলা ও হয়রানির এ ঘটনা এলাকায় জানাজানি হলে এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এদিকে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী বিরারভিটা গ্রামের নজরুল ইসলাম জানান, তিনিসহ বেশ কয়েকজন হাসান কবিরকে ছাদ থেকে সিঁড়ি দিয়ে পড়ে যাওয়ার খবর পেয়ে সাথে সাথে ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

এছাড়া স্থানীয় পল্লী চিকিৎসক আব্দুল গণি তার প্রাথমিক চিকিৎসাও দিয়েছেন। পল্লী চিকিৎসক আব্দুল গণি জানান, হাসান কবিরের পড়ে যাওয়ার খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে যান। তার উচ্চ রক্তচাপ বেশি থাকায় তিনি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

Comments are closed.

     এই ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ